সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার চায় রাঙামাটির সর্বস্তরের জনগণ


নিজস্ব প্রতিবেদক    |    ০৫:২৬ পিএম, ২০২১-০৯-২১

সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার চায় রাঙামাটির সর্বস্তরের জনগণ

রাঙামাটির ছয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা, ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্যেমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এবং হয়রানীর প্রতিবাদে জোটবদ্ধ আন্দোলনে নেমেছে রাঙামাটির সাংবাদিক সমাজ, বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনসহ সাধারণ জনগণ। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন এবং প্রতিবাদী কন্ঠে আওয়াজ তোলার মধ্যে দিয়ে প্রতিবাদের সূচনা করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ইমতিয়াজ কামাল ইমন নামের এক বখাটে যুবক রাঙামাটির মেধাবী সাংবাদিক প্রয়াত মোস্তফা কামালের ভূ-সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে কয়েক বছর ধরে তার পরিবারের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তার স্ত্রী, কন্যা এবং তার স্বজনকে নানা ভাবে হেনস্থা করে চলেছে। বখাটে ইমনের এহেন কর্মকান্ডে মোস্তফা কামালের স্ত্রী জীবনের নিরাপত্তার জন্য নিজ বাড়ি ছেড়ে দিয়ে এখন অন্যের বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করছে। বখাটে ইমন এসব করেও ক্ষান্ত থাকেনি। প্রয়াত মোস্তফা কামালের স্ত্রী বর্তমান বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাঙামাটি প্রতিনিধি ও রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সদস্য জাহেদা বেগমের পেশাগত কাজে বাধা সৃষ্টি এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেইক আইডির মাধ্যমে তার চরিত্র হনন করার লক্ষ্যে নানারকম প্রোপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে।

ইমন তার ফুফাতো বোন আয়েশা আক্তার সোনিয়া ও সোনিয়ার স্বামী ১১৯ নং সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুুর রহমান ছিদ্দিকী ওরফে সাইফের ইন্দনে নোংরা খেলায় মেতে উঠেছে। এমনকি অসহায় সাংবাদিক জাহেদা বেগমের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর কারণে বখাটে ইমন রাঙামাটির ছয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে হয়রানীমূলক মামলা দায়ের করে আইন আদালতকে প্রশ্নের মুখে দাঁড় করানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। এসব মামলা দিয়ে মেধাবী সাংবাদিকদের হয়রানী এবং কন্ঠরোধের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে দাবি করেন বক্তারা।

বক্তারা আরও বলেন, ইমনের ফুফাতো বোনের স্বামী ১১৯নং সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুুর রহমান ছিদ্দিকী ওরফে সাইফ ক্ষমতার অপব্যবহার করে রাঙামাটির থানা-পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা, জনপ্রতিনিধি এমনকি আইন কর্মকর্তাদের কাছে একের পর এক নিজের পদের পরিচয় দিয়ে প্রভাব খাটিয়ে ভিত্তিহীন মামলার মাধ্যমে সাংবাদিকদের গ্রেফতারে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

রাষ্ট্রের এই আইন কর্মকর্তা, পুলিশ এবং জনপ্রতিনিধি এবং পুলিশ কর্তাদের মোবাইলের কল রেকর্ড চেক করলে যার সত্যতা মিলবে। ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য এই আইন কর্মকর্তা নিজের পদবী ব্যবহারের মাধ্যমে ইমনকে দিয়ে নানা রকম প্রোপাগান্ডা চালিয়ে সাংবাদিক সমাজের মান-মর্যাদা ক্ষুন্ন করছেন। কিন্তু সাংবাদিক সমাজ এসব অপকর্ম আর সহ্য করবে না। আর চুপ থাকবে না। সকলের সহযোগিতায় এসব ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ খুলে দেওয়া হবে খুব শিগগরই।

পাশাপাশি রাঙামাটির ছয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার এবং তাদের জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে রাঙামাটির সর্বস্থরের জনগণ একাট্টা থাকবেন এবং এসব ভিত্তিহীন মামলা প্রত্যাহার না করলে আরও কঠোর আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে বলে যোগ করেন বক্তারা ।

মানববন্ধনে রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেলের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন দৈনিক গিরিদর্পন সম্পাদক একে এম মকছুদ আহমেদ, রাঙামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন, বাংলাদেশ শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মঈন উদ্দিন ভুইয়া, রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার আল হক, সদস্য সৈয়দ মাহবুব আহমেদ, রাঙামাটি সদর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মিজানুর রহমান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন ইসলাম, সাবেক শ্রমিক লীগ নেতা কাজী জালোয়া, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা প্রতিনিধি মনসুর আহমেদ, রাঙামাটি প্রেসক্লাব সদস্য মোঃ হান্নান, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রিয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রিয় কমিটির সহসভাপতি হাবিব আজম, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মোমিন, জয় বাংলা ইয়ুথ এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “জীবন” এর সাধারণ সম্পাদক সাজিদ বিন জাহিদ মিকি, রাঙামাটি সরকারী কলেজ ছাত্রনেতা আল-আমীন, বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা জসিম উদ্দিন প্রমুখ। উক্ত মানববন্ধন সঞ্চালনা করেছেন প্রেসক্লাবের সদস্য মঈন উদ্দিন বাপ্পী।

রাঙামাটিতে মেধাবী ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে রাঙামাটির বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ সহমত পোষন করে বলেন, যড়ষন্ত্রকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক রাঙামাটি প্রতিনিধি প্রয়াত মোস্তফা কামালের পরিবারকে ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ করার প্য়াতারা করছে। ওই পরিবারের পক্ষ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আরো কয়েকজন সাংবাদিককে মামলায় জড়ানো হয়েছে, যা কাম্য নয়।

বক্তারা বলেন, রাঙামাটি থেকে কাজ করা বিটিভি প্রতিনিধি জাহেদা কামালের সাথে ভূমি বিরোধের জেরে তার আত্মীয়দের সাথে দীর্ঘদিন যাবত মনোমালিন্য বিরাজমান। কিন্তু ভূমি বিরোধের এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে এই নারী সাংবাদিকের মান মর্যাদা ক্ষুন্ন করাসহ তার চরিত্র হননমুলক মিথ্যা প্রোপাগান্ডা চালিয়ে তার এক আত্মীয় ইমতিয়াজ কামাল ইমন বেশ কিছুদিন যাবত তার নিজের নামে এবং বেনামে (ফেইক আইডিতে) কুৎসা রটনা করে ফেইসবুকে পোস্ট দেওয়ার মাধ্যমে সাইবার অপরাধ করে আসছিলেন।

এই বিষয়ে জাহেদা কামালের পক্ষ অবলম্বন করে কথা বলায় রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সদস্য এবং এশিয়ান টিভির রাঙামাটি প্রতিনিধি আলমগীর মানিকের পোস্টেও উল্লেখিত ইমন মানহানিকর মন্তব্য করেন।

দীর্ঘদিন যাবত বিষয়টি সহ্য করার পর বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাঙামাটি প্রতিনিধি ও রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সদস্য মিসেস জাহেদা কামাল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন (যার-নং)রাঙামাটি কোতয়ালী থানা- ১৩৩, তাং ০৩/০৮/২০২১খ্রিঃ, রাঙামাটি কগনিজেন্স আদালতের স্মারক নং ৩৫৮২, তাং ১১/০৮/২০২১)। উক্ত অভিযোগটি বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে বর্তমানে তদন্তাধীন রয়েছে।

এই আইন কর্মকর্তা ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য নিজের পদবী ব্যবহারের মাধ্যমে ইমনকে দিয়ে নানা রকম প্রোপাগান্ডা চালিয়ে সাংবাদিক সমাজের মান-মর্যাদা ক্ষুন্ন করে চলেছেন। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং একই সাথে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।